কুরআন ও সহীহ হাদীছে الصِّرَاطَ الْمُسْتَقِيمَ সরল পথ (পর্ব-১)

কুরআন ও সহীহ হাদীছে الصِّرَاطَ الْمُسْتَقِيمَ সরল পথ
اهْدِنَا الصِّرَاطَ الْمُسْتَقِيمَ صِرَاطَ الَّذِينَ أَنْعَمْتَ عَلَيْهِمْ
আমাদেরকে সরল সঠিক পথ দেখান। তাদের পথ, যাদেরকে আপনি অনুগ্রহ দান করেছেন। আল-ফাতিহা, ১/৬-৭
পবিত্র কুরআনে সুরা ফাতিহায় আল্লাহ আমাদের الصِّرَاطَ الْمُسْتَقِيمَ [সিরাত্বোল্ মুস্তাকিম্] তথা সরল পথ চাইতে বলেছেন। যা সালাতের প্রতি রাকাতে পাঠ করতে হয়, আর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন- لاَ صَلاَةَ لِمَنْ لَمْ يَقْرَأْ بِفَاتِحَةِ الْكِتَابِ যে ব্যক্তি সালাতে সূরা ফাতিহা পাঠ করে না তার সালাত হয় না (বুখারী ও মুসলিম)। صِرَاطٌ সিরাত্ মানে পথ, পন্থা, রাস্তা। مُسْتَقِيمٌ মুস্তাকিম্ মানে সহজ, সরল, সোজা, الصِّرَاطَ الْمُسْتَقِيمَ [সিরাত্বোল্ মুস্তাকিম্] মানে সহজ পথ, সরল পথ, সোজা পথ।

 

 

কোনটি সরল পথ?
أَلَمْ أَعْهَدْ إِلَيْكُمْ يَا بَنِي آدَمَ أَنْ لا تَعْبُدُوا الشَّيْطَانَ إِنَّهُ لَكُمْ عَدُوٌّ مُبِينٌ وَأَنِ اعْبُدُونِي هَذَا صِرَاطٌ مُسْتَقِيمٌ
হে আদমের সন্তানেরা, আমি কি তোমাদেরকে নির্দেশ দেইনি? তোমরা শয়তানের এবাদত করো না, নিঃসন্দেহে সে তোমাদের প্রকাশ্য শত্রু আর আমারই এবাদত কর, এটাই সরল পথ। ইয়াসীন, ৩৬/৬০-৬১

 

إِنَّ اللَّهَ هُوَ رَبِّي وَرَبُّكُمْ فَاعْبُدُوهُ هَذَا صِرَاطٌ مُسْتَقِيمٌ
নিশ্চয় তিনিই আল্লাহ, আমার রব ও তোমাদেরও রব, অতএব তাঁরই এবাদত কর, এটাই সরল পথ। আয্-যুখরুফ, ৪৩/৬৪

 

إِنَّ اللَّهَ رَبِّي وَرَبُّكُمْ فَاعْبُدُوهُ هَذَا صِرَاطٌ مُسْتَقِيمٌ
নিশ্চয়ই আল্লাহ আমার রব এবং তোমাদেরও রব তাই তাঁরই এবাদত কর, এটাই সরল পথ। আলে ‘ইমরান, ৩/৫১

 

وَإِنَّ اللَّهَ رَبِّي وَرَبُّكُمْ فَاعْبُدُوهُ هَذَا صِرَاطٌ مُسْتَقِيمٌ
আর নিশ্চয়ই আল্লাহ আমার রব এবং তোমাদেরও রব তাই তাঁরই এবাদত কর, এটাই সরল পথ। মারইয়াম, ১৯/৩৬

 

وَإِنَّهُ لَعِلْمٌ لِلسَّاعَةِ فَلا تَمْتَرُنَّ بِهَا وَاتَّبِعُونِ هَذَا صِرَاطٌ مُسْتَقِيمٌ
আর নিশ্চয় সে (ঈসা পুনরায় দুনিয়াতে আগমন) হবে কেয়ামতের সুনিশ্চিত আলামত, সুতরাং তোমরা তাতে (কেয়ামতে) সন্দেহ করো না এবং তোমরা আমারই অনুসরণ কর, এটিই সরল পথ। আয-যুখরুফ, ৪৩/৬১

 

 

কাকে আল্লাহ সরল পথ দেখান?
وَالَّذِينَ كَذَّبُوا بِآيَاتِنَا صُمٌّ وَبُكْمٌ فِي الظُّلُمَاتِ مَنْ يَشَأِ اللَّهُ يُضْلِلْهُ وَمَنْ يَشَأْ يَجْعَلْهُ عَلَى صِرَاطٍ مُسْتَقِيمٍ
আর যারা আমার আয়াত সমূহকে মিথ্যারোপ করেছে, তারা বধির ও বোবা, অন্ধকারের মধ্যে আছে; আল্লাহ যাকে ইচ্ছা পথভ্রষ্ট করেন আর যাকে ইচ্ছা সরল পথের উপর রাখেন। আল-আন‘আম, ৬/৩৯

 

لَقَدْ أَنْزَلْنَا آيَاتٍ مُبَيِّنَاتٍ وَاللَّهُ يَهْدِي مَنْ يَشَاءُ إِلَى صِرَاطٍ مُسْتَقِيمٍ
অবশ্যই আমি সুস্পষ্ট আয়াত সমূহ অবর্তীর্ণ করেছি আর আল্লাহ যাকে ইচ্ছা সরল পথের দিকে পথ দেখাবেন। আন-নুর, ২৪/৪৬

 

قُلْ لِلَّهِ الْمَشْرِقُ وَالْمَغْرِبُ يَهْدِي مَنْ يَشَاءُ إِلَى صِرَاطٍ مُسْتَقِيمٍ
আপনি বলুন, পূর্ব ও পশ্চিম আল্লাহরই; তিনি যাকে ইচ্ছা সরল পথে পরিচালিত করেন।আল-বাকারা, ২/১৪২

 

كَانَ النَّاسُ أُمَّةً وَاحِدَةً فَبَعَثَ اللَّهُ النَّبِيِّينَ مُبَشِّرِينَ وَمُنْذِرِينَ وَأَنْزَلَ مَعَهُمُ الْكِتَابَ بِالْحَقِّ لِيَحْكُمَ بَيْنَ النَّاسِ فِيمَا اخْتَلَفُوا فِيهِ وَمَا اخْتَلَفَ فِيهِ إِلا الَّذِينَ أُوتُوهُ مِنْ بَعْدِ مَا جَاءَتْهُمُ الْبَيِّنَاتُ بَغْيًا بَيْنَهُمْ فَهَدَى اللَّهُ الَّذِينَ آمَنُوا لِمَا اخْتَلَفُوا فِيهِ مِنَ الْحَقِّ بِإِذْنِهِ وَاللَّهُ يَهْدِي مَنْ يَشَاءُ إِلَى صِرَاطٍ مُسْتَقِيمٍ
সকল মানুষ একই উম্মত ছিল, অতঃপর আল্লাহ সুসংবাদদাতা ও সতর্ককারী হিসেবে নবীদেরকে প্রেরণ করলেন, এবং তিনি তাদের সাথে সত্যসহ কিতাব অবতীর্ণ্ করলেন, যেন মানুষের মাঝে পরস্পরের মতবিরোধ বিষয়গুলো মীমাংসা করে দেন, অথচ যারা কিতাবপ্রাপ্ত হয়েছিল স্পষ্ট প্রমান আসার পরও কেবলমাত্র পরস্পরের বিদ্বেষবশত মতবিরোধ করেছিল অতঃপর আল্লাহর নিজ ইচ্ছায় মুমিনদেরকে সত্যের দিকে পথ দেখালেন আর আল্লাহ যাকে ইচ্ছা সরল পথে পরিচালিত করেন। আল-বাকারা, ২/২১৩

 

وَكَذَلِكَ أَوْحَيْنَا إِلَيْكَ رُوحًا مِنْ أَمْرِنَا مَا كُنْتَ تَدْرِي مَا الْكِتَابُ وَلا الإيمَانُ وَلَكِنْ جَعَلْنَاهُ نُورًا نَهْدِي بِهِ مَنْ نَشَاءُ مِنْ عِبَادِنَا وَإِنَّكَ لَتَهْدِي إِلَى صِرَاطٍ مُسْتَقِيمٍ
আর অনুরূপভাবে আমি আপনার কাছে আমার নির্দেশে থেকে রূহকে (ফেরেশতাকে) ওহী যোগে পাঠিয়েছি; আপনি জানতেন না, কিতাব কি আর ঈমান কি? কিন্তু আমি একে আলো বানিয়েছি, যার মাধ্যমে আমি আমার বান্দাদের মধ্য হতে যাকে ইচ্ছা পথ দেখাই; নিশ্চয় আপনি সরল পথের দিকে পথ দেখাচ্ছেন।আশ-শুরা, ৪২/৫২

 

وَإِنَّكَ لَتَدْعُوهُمْ إِلَى صِرَاطٍ مُسْتَقِيمٍ
আর নিশ্চয় আপনি তাদেরকে সরল পথের দিকে আহবান করছেন।আল-মু‘মিনূন, ২৩/৭৩

 

وَاللَّهُ يَدْعُو إِلَى دَارِ السَّلامِ وَيَهْدِي مَنْ يَشَاءُ إِلَى صِرَاطٍ مُسْتَقِيمٍ لِلَّذِينَ أَحْسَنُوا الْحُسْنَى وَزِيَادَةٌ وَلا يَرْهَقُ وُجُوهَهُمْ قَتَرٌ وَلا ذِلَّةٌ أُولَئِكَ أَصْحَابُ الْجَنَّةِ هُمْ فِيهَا خَالِدُونَ
আর আল্লাহ শান্তির আবাসের দিকে আহবান করেন এবং যাকে ইচ্ছা সরল পথের দিকে পথ দেখান। যারা সৎকর্ম করেছে তাদের জন্য রয়েছে কল্যাণ আর তারও চেয়ে বেশী এবং তাদের মুখমন্ডলকে মলিনতা কিংবা লাঞ্চনা আচ্ছন্ন করবে না, তারাই হবে জান্নাতের অধিবাসী, তারা সেখানে স্থায়ী হবে। ইউনুস, ১০/২৫-২৬

 

 

কিভাবে সরল পথ পাব?
إِنَّ هَذَا الْقُرْآنَ يَهْدِي لِلَّتِي هِيَ أَقْوَمُ وَيُبَشِّرُ الْمُؤْمِنِينَ الَّذِينَ يَعْمَلُونَ الصَّالِحَاتِ أَنَّ لَهُمْ أَجْرًا كَبِيرًا
নিশ্চয়ই এই কোরআন সেই দিকে পথ দেখায় যা সবচেয়ে সরল আর যে মুমিনগণ সৎকাজ করে তাদেরকে সুসংবাদ দেয়, নিশ্চয়ই তাদের জন্য রয়েছে মহাপুরস্কার। আল-ইসরা, ১৭/৯

 

وَكَيْفَ تَكْفُرُونَ وَأَنْتُمْ تُتْلَى عَلَيْكُمْ آيَاتُ اللَّهِ وَفِيكُمْ رَسُولُهُ وَمَنْ يَعْتَصِمْ بِاللَّهِ فَقَدْ هُدِيَ إِلَى صِرَاطٍ مُسْتَقِيمٍ
আর তোমরা কিভাবে অস্বীকার করছো অথচ তোমাদের সামনে আল্লাহর আয়াত সমূহ পাঠ করা হয় আর তোমাদের মাঝে রয়েছেন তার (আল্লাহর) রসূল, আর যে আল্লাহর রজ্জুকে সুদৃঢ়ভাবে ধরণ করবে, তবে নিশ্চয় সে সরল সঠিক পথের দিকে পরিচালিত হবে। আলে ‘ইমরান, ৩/১০১

 

قَدْ جَاءَكُمْ مِنَ اللَّهِ نُورٌ وَكِتَابٌ مُبِينٌ يَهْدِي بِهِ اللَّهُ مَنِ اتَّبَعَ رِضْوَانَهُ سُبُلَ السَّلامِ وَيُخْرِجُهُمْ مِنَ الظُّلُمَاتِ إِلَى النُّورِ بِإِذْنِهِ وَيَهْدِيهِمْ إِلَى صِرَاطٍ مُسْتَقِيمٍ
নিশ্চয়ই তোমাদের কাছে আল্লাহর পক্ষ হতে একটি উজ্জল জ্যোতি (রাসূল) ও একটি সমুজ্জল গ্রন্থ (কুরআন) এসেছে। আল্লাহ তার মাধ্যমে তাদেরকেই নিরাপত্তার পথ প্রদর্শন করবেন, যারা তাঁর সন্তুষ্টি কামনা করে; আর তার অনুমতিতে তিনি তাদেরকে অন্ধকার থেকে আলোর দিকে বের করে আনবেন এবং তাদেরকে সরল পথের দিকে পরিচালনা করবেন। আল-মায়েদা, ৫/১৫-১৬

Author Details

Hard work can bring a smile on your face.

Related Posts

Post thumbnail
11 months ago

একমাত্র মহান আল্লাহ তায়ালাই হচ্ছেন আমাদের রিযিকদাতা

“সৃষ্টির সূচনা থেকে কিয়ামাত পর্যন্ত যতো প্রকারের যতো মাখলুক আল্লাহ সৃষ্টি করবেন তাদের প্রত্যেকের সঠিক চাহিদা ও প্রয়োজন অনুসারে খাদ্যের...

3 months ago

ইসলামের দৃষ্টিতে সুর্যগ্রহণ ও চন্দ্রগ্রহণ (বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা)

বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা: সূর্যগ্রহণঃ চাঁদ পরিভ্রমণরত অবস্থায় পৃথিবী ও সূর্যের মাঝখানে এলে পৃথিবীর মানুষদের কাছে কিছু সময়ের জন্য সূর্য আংশিক বা...

Leave a Reply

Comment has been close by Administrator!