সেজদায়ে সাহু নিয়ে দু’টি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নোত্তর

প্রশ্ন:

১. চার রাকআত নামাযের দ্বিতীয় রাকআত নামাযে ভুলবশত তাশাহুদ এর পর দরূদ পরলে কি করণীয় ?
২. জামাতের নামাযে প্রথম কয়েক রাকআত ধরতে না পারলে ইমাম সালাম ফিরিয়ে ফেলার পর ভুলবশত সালাম ফিরিয়ে ফেললে কি করণীয়?

১ নং প্রশ্নের উত্তর
চার রাকাত বিশিষ্ট ফরজ বা সুন্নাতে মুআক্কাদা এবং তিন রাকাত বিশিষ্ট ফরজ বা বিতির নামাযে যদি মাঝখানের বৈঠকে ভুলে তাশাহুদ এর পর দরুদ শরীফ পড়ে ফেলে তাহলে তার উপর নামায শেষে সেজদায়ে সাহু দেয়া আবশ্যক হয়। সেজদায়ে সাহু দিলে নামায শুদ্ধ হয়ে যাবে। {ফাতওয়ায়ে মাহমুদিয়া-১১/৫১০}
عن الشعبي ، قال : من زاد في الركعتين الأوليين على التشهد فعليه سجدتا السه (مصنف ابن ابى شيبة، كتاب الصلاة، ما يقال بعد التشهد مما رخص فيه، رقم الحديث-3039)

 

 

হযরত শাবী রহঃ বলেন-যে ব্যক্তি প্রথম দুই রাকাতের বৈঠকে তাশাহুদের পর কোন কিছু পড়ে, তাহলে তার উপর দুই সেজদা দেয়া আবশ্যক। তথা সেজদায়ে সাহু। {মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, হাদীস নং-৩০৩৯}
فى الدر المختار- ( ولا يصلي على النبي صلى الله عليه وسلم في القعدة الأولى في الأربع قبل الظهر والجمعة وبعدها ) ولو صلى ناسيا فعليه السهو (الفتاوى الشامية، كتاب الصلاة، باب الوتر والنوافل-2/456، الفتاوى الهندية، كتاب الصلاة، الباب الثانى عشر فى سجود السهو-1/127، مراقى الفلاح، باب سجود السهو-376)

 

এখন প্রশ্ন হল তাশাহুদের পর কতটুকু দরুদ শরীফ পড়লে সেজদায়ে সাহু আবশ্যক হয়? শুরু করলেই? না পুরোটা পড়লে? এ ব্যাপারে ফুক্বাহায়ে কিরাম বলেন-তাশাহুদের পর শুধুমাত্র ৪২ হরফ পরিমাণ পড়লে তথা “আল্লাহুম্মা সাল্লিয়ালা মুহাম্মদ ওয়া আলা আলী মুহাম্মদ” পর্যন্ত পড়লে সেজদায়ে সাহু আবশ্যক হয়ে যায়। {আহসানুল ফাতওয়া-৪/29-৩0}

فى الفتاوى التاتارخانية- واذا شرع فى الصلاة على النبى عليه السلام بعد الفراغ من التشهد فى الركعة الثانية ناسيا، ثم تذكر فقام إلى الثالثة، قال السيد الإمام أبو شجاع والقاضى الإمام الماتريدى عليه سجود السهو، كما هو جواب مشايخنا، غير ان السيد الإمام قال- اذا قال “اللهم صل على محمد” وجب،—- وقال القاضى الإمام- لا يجب مالم يقل- “وعلى آل محمد” (الفتاوى التاتارخانية، كتاب الصلاة، باب سجود السهو، رقم المسئالة-2793- 2/400-401، الفتاوى الشامية، كتاب الصلاة، باب الوتر والنوافل-2/456)

 

 

২ নং প্রশ্নের উত্তর
যদি মুসল্লি ইমামের সালাম ফিরানোর আগে সালাম ফিরায়, বা একদম শব্দ শব্দ আস সালামু পর্যন্ত একসাথে ইমামের সাথে উচ্চারণ করে, তারপর স্মরণ হওয়ায় চুপ হয়ে যায়, তাহলে উক্ত মাসবুক ব্যক্তির উপর সেজদায়ে সাহু আবশ্যক হবে না। বরং দাঁড়িয়ে বাকি নামায পূর্ণ করলেই হবে। কোন সেজদায়ে সাহু দিতে হবে না।

কিন্তু যদি ইমামের সালামের শব্দ উচ্চারণের পর সালাম উচ্চারণ করে, আর সাধারণত এটাই হয়ে থাকে। তাহলে উক্ত ব্যক্তির উপর বাকি নামায পূর্ণ করার পর সেজদায়ে সাহু দেয়া আবশ্যক হয়। (ফাতাওয়ায়ে মাহমুদিয়া-১০/৪০৫-৪০৬}

 

যেহেতু সাধারণতঃ সালাম ইমামের উচ্চারণের পরই মুসল্লিরা বলে থাকে, তাই নামাযের শেষাংশে সেজদায়ে সাহু করে নেয়াই সাবধানতা হবে।
فى الفتاوى الشامية- ولا سجود عليه ان سلم سهوا قبل الإمام او معه، وان سلم بعده لزمه، لكونه منفردا حينئذ اراد بالمعية المقارنة (رد المحتار- كتاب الصلاة، باب سجود السهو-2/546، الفتاوى الهنديه، الفصل السابع فى المسبوق والاحق- 1/91، البحر الرائق، كتاب الصلاة، باب سجود السهو- 2/100، مجمع الانهر، كتاب الصلاة، باب سجود السهو- 1/222)
والله اعلم بالصواب

Author Details

Hard work can bring a smile on your face.

Related Posts

Leave a Reply

Comment has been close by Administrator!