যে কোন প্রান্ত থেকে আপনার লেখা পাঠাতে অথবা প্রশ্ন করতে এখানে ক্লিক করুন

এখন বাংলাদেশীরাও বিয়ে করতে পারবে সৌদি নারীদেরকে

ইসলাম প্রিয় ডেস্কঃ এবার সৌদি কর্তৃপক্ষ প্রবাসীদের জন্য সৌদি নারীদের বিয়ে করার বিধি নিষেধ তুলে নিয়েছে। বাংলাদেশীরাও বিয়ে করতে পারবেন সৌদি নারীদের!

সৌদি আরবে পুরুষদের তুলনায় নারীর সংখ্যা অনেক বেশি। সৌদি পুরুষরা একাধিক বিয়ে করলেও অবিবাহিত থেকে যাচ্ছে সেদেশের অনেক নারী।

এমন এক পরিস্থিতিতে সৌদি কর্তৃপক্ষ প্রবাসীদের জন্য সৌদি নারীদের বিয়ে করার বিধি নিষেধ তুলে নিয়েছেন।

তবে এজন্য ‘স্পেশাল এক্সপ্যাক্ট’ সিস্টেমে তাদেরকে পূর্ব হতেই নিবন্ধন করতে হবে। প্রবাসীরা শুধু সৌদি নারীদের বিয়ে করার সুযোগের সঙ্গে সঙ্গে তারা পেনশনসহ বেতন সুবিধাও ভোগ করতে পারবেন!

সম্প্রতি সৌদি কর্তৃপক্ষ বিদেশী অভিবাসীদের জন্য এমনই সুখবর জানিয়েছে। আরব নিউজের এক প্রতিবেদনে এই তথ্য দেওয়া হয়েছে।

সৌদির ইনস্যুরেন্সভিত্তিক এক সংস্থার বরাত দিয়ে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, সৌদিতে কোনো বিদেশী অভিবাসী যদি কোনো নারীকে বিয়ে করেন তবে তিনি মাসিক বেতনসহ পেনশন সুবিধা পাবেন।

তবে তাদের বেতন সৌদি ৩ হাজার রিয়াল বা তার চেয়ে কম হবে। সৌদি আরবের নারীদের বিমানের কেবিন ক্রু তথা বিমান-বালা হিসেবে নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু করেছে ফ্লাইডিল নামের একটি এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ।

অন্তত ২০ জন সৌদি নারী এই চাকরির সুযোগ পাবেন। পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে এটিই হবে সৌদি নারীদের কেবিন ক্রু পদে চাকরির প্রথম উদাহরণ।

মধ্যপ্রাচ্যবিষয়ক সংবাদ পর্যবেক্ষণকারী যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংস্থা মিডিল ইস্ট আই জানিয়েছে, ফ্লাইটডিল নামের বিমান সংস্থাটি সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান সৌদিয়ারই একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান।

গত মঙ্গলবার কেবিন ক্রু হিসেবে নিয়োগ দেওয়ার জন্য অনলাইনে বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে ফ্লাইডিল। সেখানে ২৩ থেকে ৩০ বছর বয়সী সৌদি নারীদের আবেদন করার আহ্বান জানানো হয়েছে।

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে, আগ্রহী প্রার্থীদের ইংরেজিতে সাবলীল এবং গ্রাহক সেবা ও বিপণনে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন হতে হবে।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলোর বরাতে মিডল ইস্ট আই জানিয়েছে, বাছাইয়ে উত্তীর্ণ সৌদি নারীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থাও করবে ফ্লাইডিল।

ফ্লাইডিল প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ২০১৭ সালে। তেল সমৃদ্ধ সৌদি আরব কোনও একটি উৎসের ওপর নির্ভরশীল না থেকে অর্থনীতিকে বহুমুখী করার উদ্দেশ্যে যে সংস্কার পরিকল্পনা করেছে তার সূত্রেই এই অপেক্ষাকৃত সস্তা বিমান সেবার যাত্রা শুরু।

সৌদি আরব চাইছে, তেলের ওপর নির্ভরশীলতা কমিয়ে পর্যটনের মতো অন্যান্য খাতে উন্নয়ন সাধন করতে। সৌদি পর্যটনের প্রতি মানুষকে আগ্রহী করে তুলতেই সৌদিয়ার অঙ্গ প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে ফ্লাইডিল।

সৌদি আরব এতদিন পর্যন্ত কেবিন ক্রু পদে নারীদের নিয়োগ দেয়নি। ২০১৫ সালে সৌদিয়ার পক্ষ থেকে বরং ঘোষণা দিয়ে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল, এয়ারলাইন্সটির নারী গ্রাহকদের সেবা দেওয়ার জন্য সৌদি আরবের নারীদের নিয়োগ করার সুযোগ থাকলেও সরাসরি কেবিন ক্রু পদে তাদের নিয়োগ দেওয়া হবে না।